Tag » BPL

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস ছেড়ে যে দলে নাম লেখালেন মাসরাফি!!

প্রথম তিন বিপিএলের শিরোপা উঠেছে তাঁর হাতে। প্রথম দুবার ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরসের অধিনায়ক হিসেবে। তৃতীয় বিপিএলে চ্যাম্পিয়ন করেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসকে। বিপিএলের পঞ্চম আসরে মাশরাফি বিন মুর্তজা নিলেন রংপুর রাইডার্সের দায়িত্ব। কাল বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে মাশরাফিকে অধিনায়ক ঘোষণা করেছে ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্তৃপক্ষ।

নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজিতে এসে রোমাঞ্চিত মাশরাফি বলেছেন, ‘তাদের কোচিং স্টাফ অসাধারণ। আমাকে যে পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে সেটাও দারুণ। এ জন্যই রাজি হয়েছি রংপুরে খেলতে।’ দলের কোচ টম মুডি। মেন্টর হিসেবে থাকবেন বিসিবির ন্যাশনাল গেম ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার নাজমুল আবেদীন, কোচিং প্যানেলে আছেন সাবেক বাঁহাতি স্পিনার মোহাম্মদ রফিকও।

এঁদের দিকে তাকিয়েই রংপুরকে নিয়ে বেশি আশাবাদী নতুন অধিনায়ক, ‘আমরা সমস্যায় পড়লে ফাহিম স্যারের কাছে যাই। এবার শ্রদ্ধেয় স্যারকে পাচ্ছি রংপুর রাইডার্সে। আমাদের সঙ্গে রফিক ভাই আছেন। টম মুডির মতো কোচ আছেন। সব মিলিয়ে দারুণ ব্যাপার। আশা করছি, আমরা রংপুরকে ভালো কিছু উপহার দিতে পারব।’

বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে থিসারা পেরেরা আর রবি বোপারার ওপর মাশরাফির যথেষ্ট আস্থা, ‘এই ফরম্যাটে দেখা যায় সাত নম্বরে কোনো একজন ব্যাটসম্যান ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিচ্ছে। কখনো কোনো বোলারও ম্যাচ জেতাতে পারে। এ রকম অনেকেই আছে রংপুরে। থিসারা পেরেরা ছয় নম্বরে সেই কাজটা করতে পারে। রবি বোপারাও এই ফরম্যাটে দারুণ।’ সঙ্গে স্থানীয় খেলোয়াড়দের কাছে প্রত্যাশা তো মাশরাফির আছেই।

সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন রংপুর রাইডার্সের নতুন মালিক বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান ও সোহানা স্পোর্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাফওয়ান সোবহান, প্রধান নির্বাহী ইশতিয়াক সাদেক, মেন্টর নাজমুল আবেদীন ও ম্যানেজার ড. আনোয়ারুল ইকবাল। মাশরাফির মতো সাফওয়ান সোবহানের চোখও শিরোপায়, ‘আমরা প্রথমবারের মতো বিপিএলে এসেছি। এখানেও ভালো করব। সবাই দল গড়ে জেতার জন্য। আমরাও তাই। অবশ্যই চ্যাম্পিয়ন হওয়াই লক্ষ্য থাকবে আমাদের।’

এবারের বিপিএলে আইকন থাকার ইচ্ছা নেই মাশরাফির। নতুন কারও জন্য নিজের আইকনের জায়গাটি ছেড়ে দেওয়ার ইচ্ছার কথা নাকি জানিয়েছেন বিসিবিকেও।

বিপিএল

নতুন কাঠামোয় বদলে গেল বিপিএলের বিদেশী খেলোয়াড়ের সংখ্যা?

এবারের বিপিএলে প্রতি ম্যাচে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণ কি আনুপাতিক হারে কমে যাচ্ছে? ক্রিকেটপাড়ায় এ প্রশ্ন উকি-ঝুঁকি দিচ্ছে। বাংলাদেশের ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের জন্য খবরটি মোটেই সুখবর নয়। 14 kata lagi

বিপিএল

বিপিএলের ৫ম আসরে কারা থাকছেন  আইকন খেলোয়াড়?

একটা অদ্ভুত মিল বা সাযুজ্য আছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটে যারা ‘পঞ্চপাণ্ডব’, যে পাঁচজন শীর্ষ তারকা- সেই মাশরাফি বিন মর্তুজা, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বিপিএলেরও আইকন বা এ+ ক্যাটাগরির পারফরমার। কিন্তু তারা পাঁচজনই শেষ কথা নয়। দল সংখ্যা আটটি। বিপিএলের ইতিহাসে এবারই প্রথম এতগুলো দল অংশ নিচ্ছে।

নিয়ম অনুযায়ী প্রতি দলে একজন করে এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার থাকবেন। কাজেই আরও তিনজন এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার লাগবে। তাহলেই প্রতি দলে একজন করে এ+ ক্যাটাগরির পারফরমার হবে।

এখন প্রশ্ন হলো- কারা সেই আট এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার? পাঁচজনের নাম আগেই বলা হয়েছে। এখন প্রশ্ন দাঁড়িয়েছে, বাকি তিনজন কারা? আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই মিলবে এ কৌতূহলি প্রশ্নের জবাব। এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার মনোনয়নের কাজ করবেন জাতীয় দলের নির্বাচকমণ্ডলী আর বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল মিলে।

ভেতরের খবর, ২৫ জুলাই হয়তো ওই আট এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটারের নাম ঘোষণা করা হবে। আসলে আটজনের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হবে, কিন্তু বাস্তবে সে সংখ্যা হলো তিন। পাঁচজনের নাম তো সবার জানা। মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ তো আগে থেকেই আছেন এ+ ক্যাটাগরির পারফরমার। তারা থাকবেনও। তাদের সাথে আর কে কে থাকবেন? সেটাই দেখার।

এখন গত বছরকে মানদণ্ড ধরলে ওই তালিকায় আরও দুটি নাম সংযোজিত হবে। যার একজন- সাব্বির রহমান রুম্মন। আর অন্যজন সৌম্য সরকার। মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর সাথে আগেরবার আইকন (এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার) ছিলেন সাব্বির-সৌম্যও।

সাব্বির রহমান ছিলেন রাজশাহী কিংসের আইকন। আর সৌম্য সরকার ছিলেন রংপুর রাইডার্সের আইকন। হিসাব অনুযায়ী, তাদের দুজনার এবারও থাকার কথা। তারা থাকলেও হচ্ছে না। যেহেতু একটি দল বেড়েছে, তাই আরও একজন এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার বাড়াতে হবে।

এখন আবার নতুন করে সিলেট ফিরে এসেছে। কাজেই ওই দলের জন্য একজন নতুন এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার লাগবে। সেই জায়গাটি কাকে দিয়ে ভড়াট করা হবে? তা নিয়েই রাজ্যের গুঞ্জন। জল্পনা। কল্পনা। এখানে কয়েকটি নাম উঠে আসছে।
এক পক্ষের দাবি, কাটার মাস্টার মোস্তাফিজ হবেন আট নম্বর এ+ ক্যাটাগরির পারফরমার। ইমরুল কায়েসের নামও শোনা যাচ্ছে। আবার কেউ কেউ নাসির হোসেনের কথাও বলছেন। তার মানে, পঞ্চপাণ্ডব ছাড়া বাকি তিন এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার হিসেবে উচ্চারিত হচ্ছে পাঁচটি নাম- সাব্বির রহমান, সৌম্য সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান, ইমরুল কায়েস ও নাসির হোসেন।

এর বাইরে আর কারও নাম আট জনের এ+ ক্যাটাগরিতে থাকার সম্ভাবনা খুব কম। কারণ, জাতীয় দল ও ঘরোয়া ক্রিকেটকে মানদণ্ড ধরলে এরাই শীর্ষ পারফরমার। ব্যাটিং ও বোলিংয়ে সেরা দশ সাজাতে হলে হয়তো এই ১০ জনের নামই আসবে।

এখন দেখার বিষয়, এই ১০ জনের মধ্য থেকে কোন আট জন এ+ ক্যাটাগরিতে পড়েন? যেহেতু মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, সাকিব ও মাহমুদউল্লঅহ অটোমেটিক চয়েজ, কাজেই বাকি পাঁচজনের মধ্য থেকে তিনজন মনোনীত হবেন। আর দুজন বাদ যাবেন। এখন দেখার বিষয় তারা কারা?

পাঁচজনের মধ্য থেকে তিনজন চিহ্নিত করা খাঁটি চোখে মনে হবে, এ আর এমন কি? খুব সহজ কাজ। আসলে তা নয়। কাজটি বেশ কঠিন। কারণ বাকি পাঁচজনের মধ্যে যাদের নাম সম্ভাব্য এ+ ক্যাটাগরিতে আছে, তাদের দুজন (ইমরুল ও নাসির) গতবার বিপিএলে যথাক্রমে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও ঢাকা ডায়নামাইটসের হয়ে খেলেছেন। এবার যদি তারা দুজন এ + ক্যাটাগরিতে পড়ে যান, তাহলে অনিবার্যভাবে পুরনো দল ছাড়তে হবে। এবং কোনো নতুন শিবিরে নাম লেখাতে হবে।

এখন প্রশ্ন হলো, তা কি হবে? যদি নাসির ও ইমরুল এবার এ+ ক্যাটাগরিতে পড়ে যান, তাহলে ঢাকা ডায়নামাইটস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কাছ থেকে অবজেকশন আসবে। কারণ নাসির গতবার ঢাকার হয়ে বেশ ভালো খেলেছেন। ঢাকা ডায়নামাইটসের শিরোপা বিজয়ে নাসিরের অবদানও আছে। সাকিব আল হাসান আইকন ক্রিকেটার হিসেবে খেলায় নাসির গতবার ফ্রি ছিলেন। যে কারণে তার পক্ষে ঢাকায় খেলা সম্ভব হয়েছে। একইভাবে মাশরাফি কুমিল্লার আইকন থাকায় ইমরুল অনায়াসে কুমিল্লায় খেলতে পেরেছেন।

এবার আইকন না থাকলেও ঢাকা এরই মধ্যে সাকিবকে এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার ধরে নাসির, মোসাদ্দেক ও শহীদকে রেখে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন নাসির এ+ ক্যাটাগরিতে পড়ে গেলে অনিবার্যভাবে ঢাকা প্রতিবাদে ফেটে পড়বে।
একই কথা প্রযোজ্য ইমরুল কায়েসের বেলায়ও। এবার মাশরাফি না থাকলেও যতদূর জানা গেছে তামিম ইকবালকে এ+ ক্যাটাগরিতে ধরে সাথে আগেরবারের লাইনআপ থেকে ইমকরুল কায়েসকেও দলে রাখতে বদ্ধপরিকর কুমিল্লা। এখন এই বাঁহাতি টপঅর্ডার যদি এ + ক্যাটাগরিতে পড়ে যান, তাহলে কুমিল্লার পক্ষ থেকেও বাধা আসবে।

Editতাই অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে পাঁচ শীর্ষ তারকা মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর সাথে নাসির ও ইমরুলের এ + ক্যাটাগরিতে থাকার সম্ভাবনা তুলনামূলক কম। সেখানে সাব্বির ও সৌম্য সরকারের সাথে শেষ পর্যন্ত হয়তো কাটার মাস্টার মোস্তাফিজ অন্তর্ভুক্ত হবেন।

বিপিএল

Chelsea 17/18 Premier League Preview

Chelsea 17/18 Premier League Season Preview

After masterminding Chelsea to the PL title in the 2014/15 season, Mourinho and his squad started a nose dive towards the bottom next fall. 893 kata lagi

Soccer

বিপিএলে ড্যারেন স্যামিকে পাচ্ছেনা রাজশাহী কিংস!!

প্রস্তাবটা দেয়া হয়েছিল তামিম ইকবালকেও; কিন্তু নিজ দেশের টুর্নামেন্ট, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ছেড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি লিগে খেলবেন না বলে তিনি জানিয়ে দেন পিএসএলের ফ্রাঞ্চাইজি পেশোয়ার জালমিকে। 6 kata lagi

বিপিএল

বিপিএলে আইকন ক্রিকেটারদের দলবদল! কে কোন দলে?

বরিশাল বুলসের মালিকের সঙ্গে মুশফিকুর রহিমের ঝামেলাই বলে দিচ্ছে, টেস্ট অধিনায়ক এবার ফ্র্যাঞ্চাইজি বদলাচ্ছেন। আগামী বিপিএলে মুশফিক খেলবেন রাজশাহী কিংসের হয়ে। যার অর্থ, রাজশাহীর গতবারের আইকন সাব্বির রহমানকেও নতুন দল খুঁজতে হচ্ছে। ফ্র্যাঞ্চাইজি বদলাচ্ছে আরও দুই আইকন মাশরাফি বিন মুর্তজা ও তামিম ইকবালের। তামিম খেলবেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসে, মাশরাফি রংপুর রাইডার্সে। আইকন তালিকায় নতুন যোগ হচ্ছেন মোস্তাফিজুর রহমান।

মাশরাফি, তামিম ও মুশফিকের সঙ্গে নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে কথাবার্তা চূড়ান্ত হয়ে গেছে। বাকি আইকনদের মধ্যে সাকিব আল হাসান ঢাকা ডায়নামাইটসে ও মাহমুদউল্লাহ খুলনা টাইটানসেই থাকছেন। গতবারের অন্য দুই আইকন সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারের দল এখনো চূড়ান্ত নয়। অবশ্য সৌম্য এবার আইকন থাকেন কি না, সেটাও একটা প্রশ্ন।

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক ফর্ম খুব একটা ভালো না যাওয়ায় সৌম্যর পরিবর্তে ইমরুল কায়েসকে আইকন করতে চায় কাউন্সিল। কিন্তু ইমরুলের পুরোনো দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের এতে আপত্তি আছে। পুরোনো চার ক্রিকেটার ধরে রাখার নিয়মের আওতায় লিটন দাস ও সাইফউদ্দিনের সঙ্গে ইমরুলকেও রাখতে চায় তারা। ইমরুল আইকন হয়ে গেলে সেটা সম্ভব নয় এবং সে জন্যই তাদের আপত্তি। গভর্নিং কাউন্সিল আপত্তিটা উড়িয়ে দেয়নি বলেই সৌম্যর আইকন থাকার সম্ভাবনা এখনো আছে।


আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় বিপিএলের পঞ্চম আসরে নতুন রূপে ফিরে আসছে সিলেট ফ্র্যাঞ্চাইজি। সে জন্য এবার আইকন খেলোয়াড়ও বাড়বে আরও একজন। গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্যসচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক তাঁর নামও জানিয়ে দিলেন, ‘জাতীয় দলের হয়ে যাঁদের পারফরম্যান্স ভালো, তাঁদেরই আইকন হিসেবে বিবেচনা করছি আমরা। এই বিবেচনায় নতুন আইকন মোস্তাফিজুর রহমানই হবেন।’

আইকন খেলোয়াড়দের জন্য গভর্নিং কাউন্সিল কোনো পারিশ্রমিক নির্ধারণ করে দেয় না। ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে সেটি খেলোয়াড়েরাই ঠিক করেন। তবে আইকনদের মধ্যে কেউ ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছ থেকে টাকা না পেলে বিসিবি সর্বোচ্চ ৬০ লাখ টাকা পর্যন্ত দেওয়ার দায়িত্ব নেবে।

বিপিএল

‘একটা ফ্র্যাঞ্চাইজি বলতে পারে না মুশফিক খারাপ’

ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্ট মানেই বৈচিত্র্যপূর্ণ সংস্কৃতির মেলবন্ধন, বিশ্বের ক্রিকেট তারকাদের এক ছাদের নিচে আসা। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্ট মানে নানা নেতিবাচক খবরের উত্সও! বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগও (বিপিএল) এর ব্যতিক্রম নয়। বিপিএলের এক ফ্র্যাঞ্চাইজির স্বত্বাধিকারী যেমন বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন মুশফিকুর রহিমের অধিনায়কত্ব নিয়ে। প্রশ্ন তুলেছেন তাঁর দায়িত্ব ও শৃঙ্খলাবোধ নিয়েও।

ব্যাপারটা বেশ অবাক করার মতোই। ক্রিকেটের প্রতি মুশফিকের নিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি গত ১২ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে তাঁকে ঘিরে চরম বিতর্ক হয়েছে, এমন উদাহরণও খুঁজে বের করা কঠিন। কিন্তু কাল একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে বিসিবির অন্যতম পরিচালক ও বরিশাল বুলসের অন্যতম মালিক আবদুল আওয়াল বলেছেন, ‘ফ্র্যাঞ্চাইজি নিয়ে বাজে মন্তব্য করায় গত বছর মুশফিককে চিঠি দেওয়া হয়েছিল।…খেলোয়াড়েরা আশা করে তাদের সে উত্সাহ দেবে, একসঙ্গে বসে পরিকল্পনা করবে। সে ভালো খেলোয়াড় কিন্তু ভালো অধিনায়ক নয়। যেটি টি-টোয়েন্টিতে খুব দরকার।’

স্বাভাবিকভাবেই আবদুল আওয়ালের এই মন্তব্যে ক্ষুব্ধ হয়েছেন মুশফিক। বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক আজ বিষয়টি জানিয়েছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলকে। এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এতটাই আবেগাক্রান্ত হয়ে পড়েন, সংবাদ সম্মেলনই শেষ করতে পারেননি মুশফিক।


আবদুল আওয়াল শুধু একটি ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকই নন, বিসিবির একজন পরিচালকও। একজন দায়িত্বশীল কর্তার এই মন্তব্যে স্বাভাবিকভাবেই বিব্রত বিসিবি। তবে তাঁর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক, ‘সে পরিচালক হোক। কিন্তু জাতীয় দলের খেলোয়াড়কে যথাযথ সম্মান করতে হবে। একজন পরিচালক হিসেবে তাকে দায়িত্ব নিয়ে কথা বলতে হবে। তাঁকে ডেকে পাঠিয়েছি। এটার জন্য যদি ক্ষমা চাইতে হয়, ক্ষমা চাইবে। যেটা করা দরকার সেটা করতে হবে। বরিশাল বুলসের হয়ে মুশফিক খারাপ করতে পারে। কিন্তু একটা ফ্র্যাঞ্চাইজি বলতে পারে না, মুশফিক খারাপ! সে জাতীয় দলের অধিনয়ক।’

বাংলাদেশ